― Advertisement ―

spot_img

রাশিয়া ও সোভিয়েত ইউনিয়নের ইতিহাস (১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত)

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়(ইতিহাস বিভাগ)বিষয় :রাশিয়াও সোভিয়েত ইউনিয়নের ইতিহাস (১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত)বিষয় কোড : 241509 ক-বিভাগ (ক) কাকে মুক্তিদাতা জার' বলা হয়?উত্তর : দ্বিতীয় আলেকজান্ডারকে । (খ) ক্রিমিয়ার যুদ্ধ...
Homeরাশিয়া ও সোভিয়েত ইউনিয়নের ইতিহাসমহাজোট সম্পর্কে সংক্ষেপে লিখ।

মহাজোট সম্পর্কে সংক্ষেপে লিখ।

ভূমিকা : সমগ্র বিশ্বে যে ঘটনা আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল সে ঘটনা হলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। মানব ইতিহাসের সবচেয়ে মারাত্মক ও কলঙ্কজনক অধ্যায়ের সৃষ্টি করে এ যুদ্ধ। সোভিয়েত ইউনয়ন তার নিরাপত্তা রক্ষার জন্য ফ্রান্স ব্রিটেন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যুদ্ধের পূর্ব থেকে যুদ্ধকালীন সময়ে বিভিন্নভাবে Alliance গঠন করে।

Grand Alliance গঠন : সোভিয়েত ইউনিয়ন হিটলারের আক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য পশ্চিমা দেশগুলোর সাথে মৈত্রীচুক্তি করার চেষ্টা করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার পূর্বে। কিন্তু এই চেষ্টা ব্যর্থ হয় সোভিয়েত ইউনিয়নের। কেননা সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতি আস্থা ছিল না পুঁজিবাদী রাষ্ট্রগুলোর । এজন্য বিলম্বিত হচ্ছিল চুক্তি করতে।

হিটলারের পরিকল্পনা থেকে তারা ও দূরে নয় পুঁজিবাদী রাষ্ট্রগুলো ভাবতে থাকে। তাছাড়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে ১৯৯১ সালের ৭ ডিসেম্বর জাপান পার্ল হারবাল আক্রমণ করলে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে মৈত্রী চুক্তিতে জাপানের এই আক্রমণের প্রতিশোধ গ্রহণ কল্পে রাজি হয় এই শর্তে যে, সোভিয়েত ইউনিয়ন যেন জাপানের আক্রমণ প্রতিহত করে এবং জাপান আক্রমণ করে। সোভিয়েত ইউনিয়ন ও পুঁজিবাদী রাষ্ট্রগুলো মিলে জোট গঠন করে এবং আস্থা বৃদ্ধি পায় তাদের মধ্যে।
তাছাড়া পুঁজিবাদী রাষ্ট্রগুলো রাজি হয় রাজনৈতিক আশা- আকাঙ্ক্ষা চরিতার্থ করার জন্য। ব্রিটেন, ফ্রান্স ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই মৈত্রী চুক্তিতে রাজি হয় কারণ সোভিয়েত ইউনিয়নের জনশক্তিকে কাজে লাগানো যাবে বলে তারা জানত এবং হিটলারকে পরাভূত করা সম্ভব খুবই সহজেই জার্মান আক্রমণ করে। তাছাড়া জার্মানি আক্রমণ করা সহজ ছিল সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে ।

অবশেষে চার্চিলই উদ্যোগ গ্রহণ করেন সোভিয়েত ইউনিয়ন এর সাথে মৈত্রী চুক্তিতে। একতাবদ্ধ হয়ে জার্মানির সাথে যুদ্ধ করার ঘোষণা দেন তিনি। এটিকে স্বীকৃতি জানান রুপভেল্ট। Grand Alliance এভাবে তৈরি হয়। চিঠিপত্রের মাধ্যমে এ জোটের পরিকল্পনা আদান-প্রদান হতো। তাছাড়া তারা মিলিত হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতো বিভিন্ন সম্মেলনের মাধ্যমে ।

উপসংহার : পরিশেষে বলা যায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ব্রিটেন ও ফ্রান্স সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে সম্পূর্ণ আলাদা ভাবধারার ও আলাদা আদর্শের হলে ও তখন মৈত্রী জোট বা সম্মিলিত শক্তি গঠন করা জার্মানির হিটলারের হাত থেকে রক্ষা এবং তাকে মোকাবিলা করার জন্য সময়ের দাবি ছিল। সে সময়ের দাবি পূরণ করে এবং হিটলারের পরবর্তীতে পরাভূত করে সোভিয়েত ইউনিয়ন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ব্রিটেন এক হয়ে। আর মৈত্রীজোটের সাফল্য এটাই ছিল ।