nulibrary

১৮৬১-১৮৬৫ সালের রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধের পর আমেরিকার পুনর্গঠন প্রশ্নে ফেডারেল ইউনিয়নকে সংগঠিত করাসহ উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে বিভিন্ন প্রশ্নে যে দূরত্বের সৃষ্টি হয়েছিল তা সমাধান করা সহজবোধ্য ছিল না। তবুও আব্রাহাম লিংকন এ্যান্ড্রু জনসন এবং কংগ্রেস যুক্তরাষ্ট্রকে পুনর্গঠনের জন্য বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেন তার মধ্যে র‍্যাডিকেল পরিবর্তন অন্যতম। কিন্তু র‍্যাডিকেল পুনর্গঠনটি প্রথমদিকে কিছু আশা জাগিয়ে আবির্ভূত হলেও পরবর্তী সময়ে তা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। আর এই র‍্যাডিকেল পুনর্গঠন ব্যর্থতার মধ্যে ব্লাক ফ্রাইডে উল্লেখযোগ্য ।
ব্লাক ফ্রাইডে : র‍্যাডিকেল পুনর্গঠন ব্যর্থ হবার একটি বড় কারণ হলো প্রশাসনের সীমাহীন দুর্নীতি। উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সুবিধাবাদী শ্রেণিটি দু'অঞ্চলে এ ক্রান্তিলগ্নে সুযোগ গ্রহণ করে। যে যেভাবে পেরেছে সে সেভাবে দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে বিত্তশালী হয়ে উঠে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় যে, ফ্লোরিডার ১৮৬৯ সালের সরকারি প্রকাশনার খরচ ১৮৬০ সালের সবগুলো রাজ্যের খরচকে ছাড়িয়ে যায়। দক্ষিণ ক্যারোলাইনার আইনপরিষদ একটি সেখানে পরিষদ সদস্যদের জন্য রাজ্যসরকার একটি রেস্টুরেন্ট ও বার চালায়। তার খরচ দাঁড়ায় এক সেশনেই ১,২৫,০০০ ডলার। এছাড়া লুইজিয়ানার তরুণ গভর্নর ওয়ারমথ তার চার বছরের শাসনকালে অর্ধ মিলিয়ন ডলারের সম্পদ গড়ে তোলে । এগুলো তিনি করেছিলেন রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি এবং স্কুল ফান্ডের বিনিময়ে। সেই সাথে সরকার এক প্রশাসনের মধ্যে থেকে ১৮৬৯ সালে সরকারের স্বর্ণনীতি সম্পর্কে মিথ্যা গুজব ছড়ায়। এ গুজব মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ার পর স্বর্ণের দাম বেড়ে যায়। ফলে মাত্র একদিনে বহু মানুষ একবারে নিঃস্ব হয়ে যায়। ১৯৬৯ সালের এই দিনটি ব্লাক ফ্রাইডে নামে পরিচিত।


উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, যুদ্ধপরবর্তী বিধ্বস্ত দক্ষিণাঞ্চলের পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে র‍্যাডিকেলদের পরিকল্পনা রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক নানা সংকটের মধ্য পড়ে। আর এই সংকটের মধ্য ১৮৬৯ সালের ব্লাক ফ্রাইডে অন্যতম। এর ফলে র‍্যাডিকেল পুনর্গঠন অকার্যকর হয়ে পড়ে।

(ক) আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথম দাস সন্তানের নাম কি ?
উত্তর : উইলিয়াম টুকার।
(খ) লিবারেটের নামক সংবাদপত্রটির প্রকাশক কে ছিলেন?
উত্তর : উইলিয়াম লয়েড গ্যারিসন।
(গ) দি কোয়াটার্স কি?
উত্তর : দাসদের বাসস্থান ।
(ঘ) 'আংকেল টমস কেবিন' গ্রন্থের লেখক কে?
উত্তর : হ্যারিয়েট বীচার স্টোয়ে ।
(ঙ) কু ক্লাক্স ক্লান কি?
উত্তর : একটি শ্বেতাঙ্গ গুপ্ত সংগঠন।
(চ) ফার্মার্স এন্ড লেবার্স ইউনিয়ন অব আমেরিকা কি?
উত্তর : আমেরিকার দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের কৃষকদের একটি সমিতি ।
(ছ) AFL এর পূর্ণরূপ লিখ ।
উত্তর : AFL এর পূর্ণরূপ হলো- The American Federation
(জ)কটন জিন কে আবিষ্কার করেন?
উত্তর : এলি উইটনি (Eliwhitney)।
(ঝ) পানামা খাল কোন দুটি সাগরকে সংযুক্ত করেছে?
উত্তর : আটল্যান্টিক ও প্রশস্ত মহাসাগরকে ।
(ঞ) দুই বিশ্বযুদ্ধের অন্তর্বর্তীকালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কোন নীতি অনুসরণ করে?
উত্তর : নিরপেক্ষতামূলক নীতি ।
(ট) গুয়াম কি?
উত্তর : একটি গুরুত্বপূর্ণ মার্কিন ঘাঁটির নাম
(ঠ)আমেরিকার নারীরা কখন ভোটাধিকার লাভ করে?
উত্তর : ১৯২০ সালে ।

ভূমিকা : আব্রাহাম লিংকন আধুনিক গণতান্ত্রিক বিশ্বের ইতিহাসে একটি স্মরণীয় নাম। তিনি বিশ্বের শক্তিশালী রাষ্ট্র আমেরিকার প্রেসিডেন্ট। তিনি আমেরিকাকে অখণ্ডতা এবং সংহতি রক্ষা করে বিশ্বের রাজনীতিতে একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রে পরিণত করেন। তিনি ছিলেন একজন বিচক্ষণ ও দূরদর্শী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। তিনি ছিলেন আমেরিকা এবং গণতন্ত্রের রক্ষক।
জন্ম ও পরিচয় : আব্রাহাম লিংকন ১৮০৯ সালে ফেঞ্চকিতে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাল্যকাল কঠোর পরিশ্রমে অতিক্রম হয়েছিল। ফলে তিনি একদিকে অসাধারণ দৈহিক শক্তির অধিকারী ছিলেন তেমনি চরিত্রে মানসিক শক্তির বিকাশ ঘটে। এছাড়াও তিনি মহৎ চরিত্রের অধিকারী ছিলেন। দয়া, সফলতা, উস্থিত বুদ্ধি, মিষ্টি ব্যবহার প্রভৃতি তাকে আদর্শ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে। পেশায় তিনি ছিলেন একজন আইনজীবী তবুও তিনি রাজনৈতিক ক্ষেত্রে প্রতিভার স্বাক্ষর রাখেন।আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর ঘরে আব্রাহাম লিংকন মানুষকে তার জন্মগত অধিকারে প্রতিষ্ঠিত সিনে করতে ঘৃণীত ক্রীতদাস প্রথার উচ্ছেদ সাধন করেন। গণতান্ত্রিক নির্ব মতাবলম্বী দক্ষিণাঞ্চলের প্রজাতান্ত্রিক দলের নেতারা আব্রাহাম করে লিংকনের শাসন কর্তৃত্ব গ্রহণে অসন্তুষ্ট থাকলেও তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ব ঐক্য তথা মার্কিন ইউনিয়ন রক্ষার্থে দৃঢ় সংকল্প ছিলেন। ১৮ আব্রাহাম লিংকন সর্ব ক্ষমতার অধিকারী হয়েও স্বৈরাচারী ছিলেন না। তিনি ক্রীতদাস প্রথার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে মানুষের আদিম, ও ঈশ্বরের দেওয়া অধিকার পুনঃস্থাপনের চেষ্টা করেছেন। আব্রাহাম লিংকন এক দুর্যোগপূর্ণ আমেরিকাকে অখণ্ড ও ঐক্যবদ্ধ স রাখতে অসামান্য অবদান রেখে পৃথিবীর মানচিত্রে যুক্তরাষ্ট্রকে সম্মান ও শক্তির আসনে প্রতিষ্ঠিত করেন।
চারিত্রিক ও গুণাবলি : আব্রাহাম লিংকন অন্য দৈহিক এক মানসিক শক্তির অধিকারী ছিলেন। কেঞ্চকী রাজ্যের একটি কাঠের কুঠিরে জন্মগ্রহণ করেও তিনি পরবর্তীতে বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। তার ব্যক্তিত্বের দৃঢ়তা মমত্ববোধ, নির্ভীকতাই তাকে ক্ষমতার শীর্ষে উন্নতি করেছিল। সকল অন্যায় এবং অসত্যের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন নির্মম ও নির্ভিক সংগ্রামী ।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, আধুনিক গণতন্ত্রের ইতিহাসে আব্রাহাম লিংকন ছিলেন একজন মহান শাসক। তিনি ছিলেন একজন কর্তব্যনিষ্ঠ ও দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক। তার সময় আমেরিকা শ্রেষ্ঠ শক্তিতে পরিণত করেন। কেননা দাস প্রথা উচ্ছেদ, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি ক্ষেত্রে কৃতিত্ব বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য । তিনি আজীবন মুক্তিকামী মানুষের জন্য, সংগ্রাম করেছেন। তিনি সারা বিশ্বে মুক্তিকামী মানুষের প্রেরণা হিসেবে আসীন হয়ে আছেন ।

nulibrary
The National University of Bangladesh's all-books and notice portal, nulibrary.com, offers all different sorts of news/notice updates.
© Copyright 2024 - aowlad - All Rights Reserved
magnifier linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram